cool hit counter
সর্বশেষ প্রকাশিত

নবজাগরণে ঠাকুবাড়ির মেয়ে-বউরা ৩

পৌলমী দাশ গুপ্ত

কাদম্বরী দেবী
কাদম্বরী দেবী

নবজাগরণে ঠাকুরবাড়ির মেয়ে-বউরা এই সিরিজে আজকে যার কথা বলব তিনি বহুল আলোচিত, পঠিত; যার সাথে রবি ঠাকুরের সম্পর্ক নিয়ে রচিত হয়েছে সিনেমা, নাটক আর বই, তিনি আমাদের কাদম্বরী দেবী।

কাদম্বরী দেবীর পিতা শ্যামলাল গঙ্গোপাধ্যায়। তিনি ঠাকুরবাড়িতে এসেছিলেন দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুরের পঞ্চম পুত্র জ্যোতরিন্দ্রনাথের বউ হয়ে। যখন তিনি ঠাকুর বাড়িতে এসেছিলেন তখন রবি’র বয়স ছিল ৭ এবং কাদম্বরী দেবীর বয়স ছিল ৯ বছর। সমবয়সী হবার কারণে দুজনের চমৎকার বন্ধুত্ব তৈরী হয়েছিল।

কাদম্বরী দেবী ঠাকুর বাড়িতে এসেই তিনতলার ছাদের উপর গড়ে তুললেন নন্দন কানন। বসানো হল পিল্পের ওপর সারি সারি পাম গাছ, চামেলি,গন্ধরাজ,করবী। এল নানা রকমের পাখি। কিশোর রবির সৌন্দর্যবোধকে সবচেয়ে উঁচু তারে বেঁধে দিয়েছিলেন এই কাদম্বরী।

জ্যোতরিন্দ্রনাথ কাদম্বরী দেবীকে শিখিয়েছিলেন ঘোড়ায় চড়া।তিনি শুধু ঘোড়ায় চড়া শিখেছিলেন তা নয়, সাধারণী নারীদের চোখে এঁকে দিয়েছিলেন এক দুঃসহ স্পর্ধার মায়ারঞ্জন, অনেকের বুকে জাগিয়েছিলেন দুঃসাহস।

কাদম্বরী দেবীর প্রধান পরিচয়, তিনি অসাধারণ সাহিত্য-প্রেমিক ছিলেন। তিনি ছিলেন সুগায়িকা ও সুঅভিনেত্রী। কাদম্বরী দেবী ১৯ এপ্রিল ১৮৮৪ সালে আত্মহত্যা করেন। তাঁর আত্মহত্যার কারণ জানা যায়নি। যদিও ধারণা করা হয় রবীন্দ্রনাথের হঠাত বিয়ে কদম্বরী দেবীকে বিচলিত করে ; তাছাড়া কাদম্বরী দেবী স্বামীকে খুব কমই কাছে পেতেন, তিনি জ্যোতরিন্দ্রনাথ ঠাকুরের কাছে প্রায়ই উপেক্ষিত হতে। কাদম্বরী দেবীর অকাল মৃত্যু রবীন্দ্রনাথের মনে গভীর দাগ ফেলে, তিনি বিভিন্ন সময় চিঠি, গান, কবিতায় তা ব্যক্ত করেন।

তাই হয়তোবা কবির লিখেন,

“নয়নের সম্মুখে তুমি নাই

নয়নের মাঝখানে নিয়েছো যে ঠাই”।

Check Also

ইতিহাসের বিধ্বংসী ভূকম্পন

ভয়াবহ ভূকম্পনে কেঁপে উঠল নেপালসহ ভারত, বাংলাদেশ, পাকিস্তান এবং চীনের অনেকটা অংশ। ভূমিকম্পের উৎসস্থল নেপাল৷ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *